দৈনিক মতামত

প্রতিভা বিকাশের অন্যতম মাধ্যম

ইতিহাস

পাইলট ইউ শু

পাইলট ইউ শু
.
.
ইউ শু ছিলেন চীনের ইতিহাসে প্রথম ফাইটার যুদ্ধবিমানের নারী পাইলট । মেধাবী ও অতীব সুন্দরী এই নারী পাইলট অল্প কিছুদিনের মধ্যে দক্ষতার মাধ্যমে নিজের প্রতিভা দেখিয়েছিলেন সারা বিশ্ব কে ।
.
.
১৯৮৬ সালে চীনে ইউ শু জন্মগ্রহন করেন । ২০০৫ সালে পিপলস এয়ারফোর্স একাডেমি তে যোগ দেন ও ২০০৯ সালে তিনি গ্রাজুয়েট সম্পন্ন করেন । ২০১০ সালে তিনি ফাইটার জেট যুদ্ধবিমান চালানোর সক্ষমতা অর্জন করে ।


.
ইউ শু যে শুধুমাত্র তার সৌন্দর্য্যের জন্য সকলের মন কেড়েছিলেন তা নয় । তিনি অত্যান্ত দক্ষতার সাথে ফাইটার যুদ্ধবিমান চালাতে পারতেন । তার দক্ষতা ও চুলের সোনালী রং এর জন্য ইউ শু এর সহকর্মীরা তাকে সোনালী ময়ূর বলে ডাকতো ।
.
.
চীনের প্রথম যুদ্ধবিমানের নারী পাইলট হিসেবে ইউ শু এর পথচলা মোটেও সহজ ছিল না । অনেক পরিশ্রমের পর তাকে দক্ষ যুদ্ধবিমানের পাইলটে পরিনত করেছিল ।

ছবিতে চীনের দক্ষ নারী পাইলট ইউ শু
ছবিতে চীনের দক্ষ নারী পাইলট ইউ শু


.
ইউ শু ফাইটার যুদ্ধবিমান নিয়ে অসাধারন ম্যানুভ্যারেটি ও বিভিন্ন কৌশলে যুদ্ধবিমান চালাতে পারতেন । তার যুদ্ধবিমানের চালানোর দক্ষতা সকল কে মুগ্ধ করতো ।
ইউ শু ফাইটার যুদ্ধবিমান হিসেবে চালাতেন ৪র্থ প্রজন্মের J-10 মাল্টিরোল যুদ্ধবিমান ।
.
.
কিন্তু মেধাবী ও অসম্ভব সুন্দরী ইউ শু ২০১৬ সালের ১২ নভেম্বর J-10 নিয়ে প্রতিদিনের মত ঠিকেই আকাশে উড়াল দিয়েছিলেন । কিন্তু এটিই ছিল তার যুদ্ধবিমান নিয়ে শেষ উড়াল দেয়া ।
২০১৬ সালের ১২ নভেম্বর সকালে ইউ শু এর যুদ্ধবিমান J-10 ক্রাশ করে আর সাথে সাথেই ইউ শু মারা যান ।
.
ইউ শু বারবার চেষ্টা করেছিলেন ইজেক্ট করে প্যারাসুটের মাধ্যমে লাফিয়ে পড়তে কিন্তু অপরদিক থেকে আসা তারেই আরেক সহকর্মীর যুদ্ধবিমানের সাথে ধাক্কা খেয়ে ওই ২টি যুদ্ধবিমান ক্রাশ করে এবং ধ্বংস হয়ে যায় ।
.
.
চীনের ইউ শু এর শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে ৩৬০০০০ মানুষের উপস্থিত ছিলেন । চীন অবশ্য জানিয়েছে ইউ শু এর মত দক্ষ যুদ্ধবিমানের পাইলটের মৃত্যু চীনের জন্য অপূরনীয় ক্ষতি ।

কিছু কথা :- বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর এই J-10 কেনার সম্ভাবনা আছে ।
এছাড়া ভারতের তেজসও কিনতে পারে অতএব বাফের অদূর ভবিষ্যৎ সর্ম্পকে কিছু বলা যায় না ।

লেখেছেন@ফারহান জোবান( গবেষক ও ইতিহাসবিদ)

4 COMMENTS

LEAVE A RESPONSE

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।