বাবার বিয়ে(০৪ পর্ব)নুসরাত মাহিন

গল্পঃবাবার বিয়ে(পর্বঃ০৪)

লেখাঃনুসরাত মাহিন

মাকে খুব দেখতে ইচ্ছে করছে তিন দিন ধরে সদর হাসপাতালে ভর্তি আছি।পায়ে পোড়া স্থানে ওসব ছাল বাকোল দেবার কারনে ইনফেক্সন হয়েছে। মাকে জানানো হয়নি আমি অসুস্থ। আমার পা পুড়ে গেছে খবর পেয়ে ছোট মামা এসে হাসপাতালে নিয়ে আসছে সাথে মুক্তা আপু আছে। মেঝো আপু নাইটের গাড়িতে চরেছে সকালের মধ্যে এখানে পৌছিয়ে যাবে।

বাবা শুধু মামাকে দশ হাজার টাকা দিয়ে কর্তব্য পালোন করতে চেয়েছিলো। মামা বাবার কাছ থেকে এক টাকাও নেয়নি। বাবা একটা বারের জন্য আমাকে দেখতেও আসেনি অথচ রায়হান স্যার এসে আমাকে দেখে গেছে।

খুব কষ্ট পেয়েছিলাম যখন বাবাকে বলেছি ছোট মা ইচ্ছা করে আমার পা পুড়িয়ে দিয়েছে বাবা আমার কথা বিশ্বাস করেনি ছোট মা যা বলেছে তাই বিশ্বাস করেছে। সংসারে অশান্তি লাগানোর জন্য নাকি এই কাজ করেছি বাবার সুখ দেখে আমাদের সহ্য হচ্ছে না।

একদিনে ডাক্তার, নার্সদের সাথে ভালো সম্পর্ক হয়ে গেছে সবাই আমাকে অনেক ভালোবাসে বিশেষ করে সাহেদ ভাই।

বড় আপু অনেক প্রকার খাবার রান্না করে পাঠিয়ে দিয়েছে জ্বর, শরীরে ব্যথার কারনে কিছুই খেতে পারিনা।

মেঝো আপুটার কষ্ট হচ্ছে আমার জন্য একটুও ঘুমাতে পারেনা দিন-রাত জেগে থাকে সেবা যত্ন করে ।

বাবার বিয়ে

সাহেদ ভাইয়ের আপুকে অনেক পছন্দ হয়েছে মামার কাছে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছে। আপুর ও মনে হয় সাহেদ ভাইকে পছন্দ হয়েছে দেখলে মুচকি মুচকি হাসে।

আগামিকাল সকালে বাড়িতে যাবো। মা ঢাকাতে আছে এখনো বাড়ি আসেনি।

আপুর সাথে সাহেদ ভাইয়ের বিয়েটা ঠিক হয়ে গেছে। ছোট মা, চাচা ফুফুদের দেখেই বোঝা যাচ্ছে ওনারা কেউ খুসি হয়নি। উল্টা গ্রামে সবার কাছে বলে বেড়াচ্ছে কি মাইয়া দেখছো শহরে ডাক্তার দেখাইতে যাইয়া বেডা ধইরা আনছে। মিয়া ভাইরে বিয়া করাইয়া ভালো করছি। এই মাইয়ারা ভায়ের মানসম্মান কিছুই রাখবে না।

পায়ের ঘা কোমছে কিন্তু ঠিক মত হাটতে পারিনা। মা আমার এই অবস্থা দেখে চিৎকার করে কাঁদছে এর আগে মাকে এভাবে কাঁদতে দেখিনি। মা আমাকে চোখের আড়াল হতে দেয়না আমার রেজাল্ট দিয়েছে স্কুলে যেতে দেয়নি। মেঝো আপু আর মুক্তা গেছে রেজাল্ট আনতে। রেজাল্ট দেখে মনটা খারাপ হয়ে গেছে তৃতীয় হয়েছি। আমি ক্লাসে কখন দ্বিতীয় হয়নি। আপু সাথে বাবার কথা কাটাকাটি হয়েছে কেন আমার প্রাইভেট টিচার রাখা বন্ধ করে দিয়েছিল। বাবা সাফ জানিয়ে দিয়েছে সে আমাদের পড়ালেখার পিছনে এক টাকাও খরচ করবে না ।

জেবা আপু (মেঝ আপা) বিয়ে উপলক্ষে আপুরা সবাই বাড়িতে এসেছে।

বড় দুলাভাই স্কুলে গিয়ে রায়হান স্যারকে ঠিক করে এসেছে আমাকে বাসায় এসে পড়ানোর জন্য।

আপুর বিয়েতে বাবা কোন খরচ দিতে পারবে না বাবার হাতে টাকা পয়সা নাই। অথচ দু’দিন আগে ভাইয়ের জন্মদিন উপলক্ষে ভাইয়ের নামে তিন বিঘা জমি কিনে দিয়েছে। মামারাই আপুর বিয়ের সব ব্যবস্থা করেছে।

গতরাতে বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে নগদ তিন লাক্ষ টাকা আর আপুর বিয়ের গহনা ডাকাতেরা নিয়ে গেছে।

এত পাহারাদার থাকার পরেও ডাকাতরা কিভাবে ঘরে ঢুকলো আর দরজা খুললো কিভাবে..?

ঘরে ডাকাতি হবার সময় ছোট মার ভাই ঘরে ছিলোনা ওই সময় উনি কোথায় ছিলো। ডাকাতরা শুধু আপুর বিয়ের গহনা নিয়ে গেলো বাসায় তো ছোট মার স্বর্নের জিনিসপত্র ছিল তা নিলো না কেনো।

বাবার বিশ্বাস মা নাকি মামাদের দিয়ে লোক ভাড়া করে বাড়িতে ডাকাতি করিয়েছে। ৩৭ বছর সংসার করার বিনিময়ে মা পেলো মিথ্যা অপবাদ।

ফুপাতো ভাইয়েরা গিয়ে আপুর বিয়েটা ভেঙে দিয়ে এসেছে। এখন সাহেদ ভাইয়ের বাসার লোকেরা এ বিয়েতে রাজি না।

সাহেদ ভাই একাই এসেছে আপুকে বিয়ে করার জন্য। সাহেদ ভাই মায়ের কাছে হাত জোর করে আপুকে চাচ্ছে।

সাহেদ ভাই– আমি জানি আপনারা খুব আশ্চর্য হচ্ছেন এত কিছুর পরেও কেন আমি বিয়েটা করতে চাচ্ছি। আমার ছয় বছর বয়সে মা মার যায়। বাবা আবার বিয়ে করে ঘরে আসে সৎ মা। সৎ মা কখনো আমাকে নিজের সন্তান হিসাবে মেনে নিতে পারিনি ঠিক মত খেতে দিতোনা, আমাকে দিয়ে বাড়ির কাজ করাতো। মাছ, মাংস রান্না করলে আমাকে খেতে দিতোনা। আমাকে দিত সাদা ভাত আর শুকনা মরিচ। জানেন একটু ভালো খাবার খাওয়ার জন্য নদীতে, পুকুর থেকে মাছ ধরে আনতাম। মাকে বলতাম মা আজকে আমাকে একটা বড় মাছ দিয়েন কিন্তু মা কোন সময় আমাকে একটা বড় মাছের টুকরা দিতো না বেছে বেছে সব থেকে ছোট মাছটা আমার প্লেটে দিও।

প্রতিবাদ করলে কপালে মাইর ছাড়া কিছু জোটতো না। কত দিন কত রাত না খেয়ে কাটিয়েছি তার ঠিক নাই। আব্বা দেখেও না দেখার ভান করে থাকতো।

আমি অনেক কষ্টে পড়ালেখা করেছি মানুষের বাড়ি কামলাগিরি ও করেছি।

এস এস সি পাশ করারা পরে নানা এসে আমাকে নিয়ে যায়। মামারা,খালারা মিলে আমার সব খরচ দেওয়া শুরু করে। আমি মেডিকেলে চান্স পাবার পরে সবার কাছ থেকে টাকা নেওয়া বন্ধ করে দেই টিউশনি করে নিজের খরচ নিজেই চালাতে শুরু করি। আমি জানি সৎ মায়ের জ্বালা কি..?

মেডিকেলে নিশিকে দেখে আমার খুব কষ্ট হয়েছিল। সৎ মায়েরা যে কি অত্যাচারী হয় যারা এর স্বিকার হয় তারাই একমাত্র জানে।

জানেন মা আমি যখন থেকে বুঝতে শিখেছি মনে মনে পণ করেছি কখনো দুটা সন্তান নেবো না কারন প্রথম সন্তানের ভালোবাসার ভাগ হয়ে যাবে। একটা বাচ্চা থাকলে পুরো ভালোবাসা, সম্পত্তি ও পাবে আর দুটা হলে অর্ধেক অর্ধেক। তাই আমি দুইটা সন্তান কখনো নেবো না।

মা জেবাকে আমি আপনাদের কাছে ভিক্ষা চাই আমি কথা দিচ্ছি ওরে কোন দিন কষ্ট দেবো না। আমি আপনার ছেলে হতে চাই।

কোন অনুষ্ঠান ছাড়া এক কাপড়ে আপু বিয়েটা হয়ে গেলো। মায়ের গহনার চার ভাগ করে এক ভাগ জোর করে আপুকে দিয়ে দিয়েছে। মামারা চেয়েছিল আপুকে আসবাবপত্র বানিয়ে দিতে সাহেদ ভাই এক টাকার জিনিসপত্র নেবে না। বিয়ে করে ঐদিন রাতেই আপুকে নিয়ে চলেগেছে।

ছোট মায়ের বাবার বাড়ির লোকেরা আলাদীনের চেরাগ পেয়েছে। আগে দুইবেলা ঠিক মত ভাত খেতে পারতোনা এখন বাড়িতে দালানঘর তুলছে, জমি রেখেছে, বাজারে ফলের দোকান ও দিয়েছে। বাবার এখন চোখ থেকেও অন্ধ ।

আমাদের রাইসমিলটা বিপুল পরিমান লস হয়েছে বন্ধ হবার মত অবস্থা।

এদিকে ছোট মায়ের আবার বাচ্চা হবে। বাবা ইদানীং আমাদের রুমের কাছে রাতে ঘোরাঘুরি করে মায়ের সাতে ঘনিষ্ট হতে চায়।

স্কুলে টেষ্ট পরীক্ষা চলছে পরীক্ষা শেষে বাসায় এসে দেখি মা বিছানার পড়ে আছে সমস্ত শরীরে রক্তের ছোপ ছোপ দাগ।

চলবে….

বাবার বিয়ের সব গল্প পড়ুন

admin

Recent Posts

ফেসবুক থেকে ভিডিও ডাউনলোড করার উপায়

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সারা বিশ্বের যুবক-শিশু-বৃদ্ধ কম-বেশ ফেসবুকের সাথে পরিচিত রয়েছে। ২০১৭ সালে ফেসবুক বছরের প্রান্তিক আয় ঘোষণার সময়…

1 সপ্তাহ ago

বিবাহের জন্য পাত্রী নির্বাচন করবেন যেভাবে

মানব জাতির মধ্যে পৃথিবীতে সর্বশ্রেষ্ঠ সম্পর্ক হলো স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক,এর চেয়ে উত্তম সম্পর্ক পৃথিবীতে আর আসবে না।এবং পৃথিবীতে সর্বপ্রথম সম্পর্কও স্বামী-স্ত্রীর(আদম-হাওয়ার)।রাসুল(সাঃ)…

2 সপ্তাহ ago

এলার্জি থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়ার উপায়।। ১০০% কার্যকরী।।

এলার্জি!পৃথিবীর সকল মানুষের মধ্যেই কম-বেশ এলার্জি অবশ্যই থাকে।কারো শরীরে বেশি কারো শরীরে কম পার্থক্য এইখানেই।তবে অতিরিক্ত এলার্জি কতটুকু কষ্টকর তা…

2 সপ্তাহ ago

তাড়াতাড়ি ঘুম আসার সহজ উপায়।। ১০০% কার্যকরী।।

ঘুম!পৃথিবীতে সবচেয়ে শান্তি ও আরামদায়ক মুহূর্ত হচ্ছে ঘুম।ঘুম আমাদেরকে পরবর্তী দিনের কাজ-কর্ম করার জন্য চাঙা করে তুলে।সারাদিন কাজ-কর্ম ও খেলাধুলা…

2 সপ্তাহ ago

হস্তমৈথুনের উপকারিতা ও অপকারিতা এবং মুক্তির উপায়

হস্তমৈথুন (Masturbation) কি? হস্তমৈথুন বা স্বমেহন (Masturbation)  হচ্ছে এক ধরণের বিকৃত যৌনক্রিয়া।যা শয্যাসঙ্গিনী/সঙ্গী ছাড়া হাত কিংবা সেক্সটয় এর মাধ্যমে নারী/পুরুষ যৌনসুখ উপভোগ করার চেষ্টা করে…

2 সপ্তাহ ago

বাবার বিয়ে(শেষ পর্ব)নুসরাত মাহিন

গল্পঃবাবার বিয়ে(পর্বঃ১০) লেখাঃনুসরাত মাহিন মধুর আমার মায়ের হাসি চাঁদের মুখে ঝরে মাকে মনে পরে আমার মাকে মনে পরে। দেখতে দেখতে…

2 সপ্তাহ ago