বাবার বিয়ে(০৯ পর্ব)নুসরাত মাহিন

গল্পঃবাবার বিয়ে(পর্বঃ০৯)

লেখাঃনুসরাত মাহিন

আপুর কাছে সুনলাম বাবার একটা মেয়ে হয়েছে কিন্তু প্রতিবন্ধী। শুনে খুব খারাপ লাগলো বাবা, ছোট মা যাই করুক না আমাদের সাথে বাচ্চাটার কোন দোষ নেই নিঃশপাপ।

আজকে সালমান ভাইয়ের বিয়ে। সালমান ভাই হল বড় আপুর চাচাতো দেবর ছোট আপুর সাথে উনার সাত বছরের রিলেশন ছিল। আমরা ব্রোকেন ফ্যামিলির মেয়ে বলে সালমানদের ফ্যামিলি কেউ এই বিয়েতে রাজি না। সালমান ভাইও আপুকে ফিরিয়ে দিয়েছে কারন একেতো ব্রোকেন ফ্যামিলি তার উপর বুড়ো বয়সে বাবা বাচ্চা হয়েছে। আপুকে বিয়ে করলে সমাজে মুখ দেখাতে পারবে না। এতটা বছর ভালোবাসার নামে মিথ্যা অভিনয় কি দরকার ছিলো। বাবা বিয়ে করেছে ছয় বছরের বেশি তখন কেনো রিলেশনটা ভেঙ দিলোনা তাহলে তো আপুকে এত কষ্ট পেতে হতোনা। ছোট আপু অনেক ভেঙে পড়েছে আমার খুব কষ্ট হচ্ছে আপুর কষ্ট দেখে।

হয়তোবা ব্রোকেন ফ্যামিলির জন্য কতশত মানুষের স্বপ্ন ভেঙে যায়।

মন ভাঙা আর মসজিদ ভাঙা সমান কথা। উপরে আল্লাহ আছে তিনিই বিচার করবে।

কাল গ্রামে যাবো মায়ের কবর জিয়ারত করতে। ওখানে গেলে হয়তো আপুর মন ভালো হয়ে যেতে পারে।।

বাসায় নতুন কাজের বুয়া রাখা হোয়েছে বাসার দারোয়ান কাসেমের স্ত্রীকে।

ওনাদের দুইটা বাচ্ছা ছেলেটার বয়স ছয় বছর হবে আর মেয়েটার তিন।

এতদিন আমি একটা জীনিস খেয়াল করে দেখলাম। কাজের বুয়া দুইটা বাচ্চাকে সাথে নিয়ে কাজ করতে আসে। মেয়েটাকে ফ্লরে বসিয়ে রাখে কিন্তু ছেলেটাকে কোলে নিয়ে কাজ করে। ছেলেটাকে এক মিনিট এর জন্য কোল থেকে নামায় না ওনি না পারলে কাশেমের কাছে দিয়ে আসে আর মেয়ে বাচ্চাটা কান্না করলেও ফিরেও তাকায় না উল্টা গায়েও হাত তোলে।

বুয়াকে প্রতিদান দুপুরে খাবার দেওয়া হয়। ওনাকে দেখি মাছ, মাংস যা ই দেইনা কেন প্রথমে ছেলেটাকে আগে মাছ, মাংস দিয়ে ভাত খাওয়ানোর শেষ প্লেটে ঝোল দিয়ে মাখানো খালি ভাতগুলো মেয়েটা কে খাওআয়।

উনাদের স্বামী -স্ত্রী কান্ডকারখানা দেখে আমি হতবাগ। এরা জি জন্মদাতা পিতামাতা নাকি অন্য কিছু।

আপুকে বলে দিয়েছি ছোট বাচ্চা মেয়েটাকে আলাদা করে খাবার দিতে। বাচ্চাটার মুখের দিকে তাকালে মায়া লাগে দেখেই বোঝা যায় অযত্ন অবহেলায় অপুষ্টি জনিত সমস্যায় ভুকছে।

ধনী, গরিব, শিক্ষক, অশিক্ষীত সব খানেই কন্যা সন্তানরা অবহেলিতো।

কাজের বুয়ার সাথে কথা বলে বুঝতে পারলাম ওনি ওনার পরিবার থেকে শিখে এসেছে। ওনার পরিবার ও কন্যা সন্তানের সাথে এই একি আচারন করেছে।

তাদের ভাষ্য মতে মেয়ে বিয়া দিলে পরের ঘরে গিয়া পর হইয়া যাইবে। পোলা তো আর পর হইবেনা ঘরের পোলা ঘরেই থাকবে। বুড়া বয়সে আমাগো দেখভাল করবে। আমরা যদি পোলারে না খাওয়াই তাইলে পোলায় কি আর আমগো বুড়া বয়সে খাওয়াইবে।

একটা বার ও চিন্তা করলো না। কয় দিন পরে বিয়ে দিলে মেয়েটা শ্বশুর বাড়ি চলে যাবে। স্বামী, শ্বশুরবাড়ির লোকেরা ভালোবাসবে তার গ্যারান্টি কে দেবে তারাতো এর থেকে বেশি অত্যাচার করতে পারে। আপনার মেয়ে সন্তানটা জীবনে কি পেলো না বাবা-মেয়ের ভালোবাস না স্বামী সংসারে শান্তি।

কাজের বুয়াকে অনেক বুঝালাম জানিনা লাইবা নামের মেয়েটা সুখের দেখা পাবে কিনা নাকি অবহেলা অনাদরে বড় হবে..?

রাখে আল্লাহ মারে কে আল্লাহ যদি সহায় হয় কার সাধ্য আছে মুখ ফিরিয়ে নেবার। ছোট আপুর বিয়ে ঠিক হয়েছে আপুর ভার্সিটির শিক্ষকের সাথে। ওনারাই বাসায় বিয়েত প্রস্তাব নিয়ে আসে এই শুক্রবার বিয়ে। আত্নীয়স্বজন সাবাই আসা শুরু করেছে। বাবারর বাড়ির কেউ বিয়েতে আসবে না। মামারা সবাই চলে এসেছে।

বিয়ে উপলক্ষে আমাদের তিন বোনের একি রকম ম্যাচিং করা ড্রেস কিনেছি। দুলাভাই আর বাবুদের একি রকম ড্রেস তৈরি করতে দিয়েছি।

অবশেষে কোন ঝামেলা ছাড়া আপুর বিয়েটা হয়ে গেলো সবাই খুব খুশি।

মেয়ে তুমি মানে… একটা সময় আপন মানুষরা হয়ে যাবে পর আর অপরিচিত মানুষ গুলো হয়ে যাবে আপন। বাবার বাড়ি ছেড়ে যেদিন তুমি স্বামী বাড়ি চলে যাবে ওটাই হবে তোমার আপন ঠিকানা।

আপুর বাসার পাশের ফ্লাটের ভাবি কে সবাই বিবিসি বাংলার সাংবাদিক বলে ডাকে ওনার কাজ হলো এলাকায় কোথায় কি ঘটছে তা নিয়ে আলোচনা – সমালোচনা করা। এক জনের কথা অন্য জনেরে কানে লাগানো। উনি বেশকিছু দিন ধরে
ঘন ঘন আমাদের বাসায় যাতায়াত করছে মতলবটা বুঝতে পারছি না।

আমার রুমে বসেই ওদের সব কথা শোনা যাচ্ছে।

— নাজিয়ার বিয়েটা হয়ে গেলো ভাবি আমার খুব ইচ্ছা আপনাদের সাথে আত্নিয় করার। ভেবেছিলা নাজিয়া কে আমার ছোট ভায়ের জন্য বউ করে নেব কিন্তু তার আগেই ওর বিয়ে ঠিক করে ফেললেন। ভাবি একটা কথা জিঙ্গেস করি নিশি কি আপনার মায়ের পেটের বোন..?

— ভাবি এই কথা কেন বললেন। আমারা মায়ের পেটের আপন চার বোন। হ্যা নিশি আমার আপন বোন।

— না আসলে কিছু মনে কইরেন না নিশিকে দেখলে মনে হয়না আপনাদের বোন চেহারায় কোন মিল নাই। আপনারা তিন বোন দেখতে অনেক সুন্দর কি ফর্শা আর নিশির গায়ের রং ময়লা। এই বাজারে কালো মেয়েদের কোন দাম নাই। নাজানি বিয়ে দিতে কত ভোগান্তি শিকার হতে হয়।

— এটা আমাদের বিষয় আপনাকে ভাবতে হবে না। শ্যামলা দেখে কি আমার বোন পানিতে পরে গেছে। গায়ের রং ফর্শা হলেই বুজি আপনাদের কাছে সে সুন্দর হয়ে যায়। আমাদের চার বোনের মধ্যে নিশির চেহারা সবথাকে দেখতে সুন্দর, লাবন্য ভাব বেশি।

— কি জে বলেন ভাবি কালা মাইয়ার কোন দাম আছে নাকি। ছেলে মানুষ হইলো খাটি হীরা কালা, ফর্সা সবি সমান। আমার ভাই কিছু দিনের মধ্যে বাহিরে যাবে সোনার টুকরা ছেলে। ভাবি আপনাদের খুব মনে ধরেছে আপনারা যদি চান নিশির বিষয় ভেবে দেখতে পারি। তবে কথা হল কালা মাইয়া বোঝেন তো শ্বশুর বাড়ীর লোকেদের মন জয় করতে হবে।

— নিশিকে এত সকালে বিয়ে দেবার কোন ইচ্ছা নাই। আমাদের সবার ইচ্ছা ও ডাক্তারি পড়বে।

— কালা মাইয়া এত পড়িয়ে কি লাভ বয়স থাকতে বিয়ে দিয়ে দেন পরে কিন্তু পস্তাবেন পাত্র খুঁজে পাবেন না। আমার ভাই পাত্র হিসাবে খুব ভালো। আপনাদের ছেলেরে তেমন কিছু দেওয়া লাগবে না সুইডেন যাবার খরচটা দিলে হবে। আর মেয়েপক্ষরা এমনিতে ঘর সাজিয়ে দেয় উপহার হিসাবে ঘরটা সাজিয়ে দিলেন হবে।

— ভাবি আপনি এখন আসতে পারেন আমার বোনের গায়ের রং নিয়ে আমরা অখুসিনা। আপনার সোনার টুকরা ভাইকে অন্য কোথাও বিয়ে দিয়ে সোনার হরিন নিয়ে আসেন। আপনি যে শিক্ষীত আপনার কথায় তা বোঝ যায়না মন মানুসিকতা চেইঞ্জ করেন। আর কোন কথা না এবার আসেন।

নিজের অজান্তে বুকচিরে একটি দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে এল। এতখুন আপুর আর পাশের বাসার ভাবির কথা শুনতে ছিলাম। এতদিন মেয়ে হয়েছি দেখে কথা শোনা লাকতো এখন কালো মেয়ে বলে অপমানিত হতে হয়। আল্লাহ আর কত ছোট করবে মানুষের কাছে। আল্লাহ গো ধৈর্য ধরার শক্তি দেও যেন হতাস হয়ে কোন ভুল কাজ না করে বসি।

কিছু দিন আগে একটা কবিতা শুনেছিলাম।

আমি এক সাধারন মেয়ে রং যদিও কালো

চোখ কালো হরিন ন্যায় লোকে বলে দেখতে বেশ ভালো।

শুনেছি যেদিন নাকি জন্মেছিলাম , ঠাকুর মার মাথায় ছিল হাত বিলাপ করে বলেছিল করবো কি করে এই মেয়ে কে পাড়।

যেমন যেমন বয়স বাড়ে কাঁটছে তো সময় মেলা। সবার চোক্ষে দেখতে পাই রংটার অবহেলা।

যেই আসছে সেই দিচ্ছে উপদেশের পাহাড় কোলা মেয়ের কেমন হবে আচার বিচার..

ইন্টার পরীক্ষার রেজাল্ট দিয়েছে আমি এ প্লাস পেয়েছি। থ্রি ডক্টরস মেডিকেল কোচিং ভর্তি হয়েছি পড়াশুনার অনেক চাপ সাতমাস হলো গ্রামে যাইনা। কতদিন মাকে দেখিনা মা খুব রেগে আছে।

আজ নয় মাস পরে মায়ের কবর
জিয়ারত করছি, রাব্বিল হাম হুমা কামা রাব্বায়ানিস সাগিরা। মা আমি ডাক্তারিতে চান্স পেয়েছি খুলনা মেডিকেল কলেজে।

মাগো তোমাকে দেখতে আসিনা এই জন্য তুমি খুব রাগ হয়ে আছো। আমি তো তোমার স্বপ্ন পুরোন করার জন্য আসতে পারিনি। কতদিন তোমায় মুখটা দেখিনা আগেতো রোজ স্বপ্নে দেখা দিতে এই কয়টা মাস একবার ও আসোনি। প্রতিদিন রাতে অপেক্ষায় থাকি তুমি আসবে কিন্তু তুমি তো আসোনা। আমার ঘুম ভেঙে যায় নিঃশ্বাস নিতে পারিনা মা খুব কষ্ট হয়।

মাগো আমি তোমায় একবার দেখতে চাই, একবার কথা কইতে চাইগো মা।

তুমি কথা বলবেনা আমার সাথে…?

চলবে…

বাবার বিয়ের সব গল্প পড়ুন

admin

Recent Posts

ফেসবুক থেকে ভিডিও ডাউনলোড করার উপায়

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সারা বিশ্বের যুবক-শিশু-বৃদ্ধ কম-বেশ ফেসবুকের সাথে পরিচিত রয়েছে। ২০১৭ সালে ফেসবুক বছরের প্রান্তিক আয় ঘোষণার সময়…

1 সপ্তাহ ago

বিবাহের জন্য পাত্রী নির্বাচন করবেন যেভাবে

মানব জাতির মধ্যে পৃথিবীতে সর্বশ্রেষ্ঠ সম্পর্ক হলো স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক,এর চেয়ে উত্তম সম্পর্ক পৃথিবীতে আর আসবে না।এবং পৃথিবীতে সর্বপ্রথম সম্পর্কও স্বামী-স্ত্রীর(আদম-হাওয়ার)।রাসুল(সাঃ)…

2 সপ্তাহ ago

এলার্জি থেকে চিরতরে মুক্তি পাওয়ার উপায়।। ১০০% কার্যকরী।।

এলার্জি!পৃথিবীর সকল মানুষের মধ্যেই কম-বেশ এলার্জি অবশ্যই থাকে।কারো শরীরে বেশি কারো শরীরে কম পার্থক্য এইখানেই।তবে অতিরিক্ত এলার্জি কতটুকু কষ্টকর তা…

2 সপ্তাহ ago

তাড়াতাড়ি ঘুম আসার সহজ উপায়।। ১০০% কার্যকরী।।

ঘুম!পৃথিবীতে সবচেয়ে শান্তি ও আরামদায়ক মুহূর্ত হচ্ছে ঘুম।ঘুম আমাদেরকে পরবর্তী দিনের কাজ-কর্ম করার জন্য চাঙা করে তুলে।সারাদিন কাজ-কর্ম ও খেলাধুলা…

2 সপ্তাহ ago

হস্তমৈথুনের উপকারিতা ও অপকারিতা এবং মুক্তির উপায়

হস্তমৈথুন (Masturbation) কি? হস্তমৈথুন বা স্বমেহন (Masturbation)  হচ্ছে এক ধরণের বিকৃত যৌনক্রিয়া।যা শয্যাসঙ্গিনী/সঙ্গী ছাড়া হাত কিংবা সেক্সটয় এর মাধ্যমে নারী/পুরুষ যৌনসুখ উপভোগ করার চেষ্টা করে…

2 সপ্তাহ ago

বাবার বিয়ে(শেষ পর্ব)নুসরাত মাহিন

গল্পঃবাবার বিয়ে(পর্বঃ১০) লেখাঃনুসরাত মাহিন মধুর আমার মায়ের হাসি চাঁদের মুখে ঝরে মাকে মনে পরে আমার মাকে মনে পরে। দেখতে দেখতে…

2 সপ্তাহ ago